গদ্য-কাব্য আখ্যান :: খালেদ উদ-দীন

গদ্য-কাব্য আখ্যান :: খালেদ উদ-দীন

কথাশিল্পী পাপড়ি রহমান এর ‘বনতরুদের বায়োগ্রাফার’ একটি মুক্তগদ্যের অ্যালবাম। তাঁর গদ্যভাষায় সবসময় একটা নিরীক্ষা ও কাব্যদ্যোতনা থাকে। এই বইয়ের ষোলটি গদ্যেও তা বিদ্যমান। ‘ভাষার যাদু’ বলে যে একটা কথা আছে, এই গদ্যশিল্পীর কোনও লেখা পড়া অাছে এমন সকলেরই তা জানা। লেখক পড়ায় সমৃদ্ধ-জ্ঞাত মেধা ও সৃজনক্ষমতায় যে কী বিপুলভাবে ঋদ্ধ তা এই বই পাঠে বোঝা যায়। কাব্যময় গদ্যশৈলীর কী সুনিপুণ বিন্যাস প্রতিটি লাইনে লাইনে! সে এক আশ্চর্যই বটে।
ষোলটি গদ্যের প্রতিটিতেই কবিতা-উদ্ধৃতি আছে। জীবনানন্দ থেকে রুমি। প্রতিটি গদ্য স্বতন্ত্র বিষয়ে বৈচিত্র্যময়। অবাক করা শিরোনাম। যেমন, ‘শীত : নক্ষত্রের নিচে ঘাসের বিছানায় বসে  অনেক পুরনো শিশিরভেজা কোনো গল্প নয়!’/ ‘নানবীর অশ্বথ-বটের আবছায়া’/ ‘ঘুমায়ে পড়িছে সবুজ পাতাদল।’ শীত নিয়ে লেখা প্রথমগদ্যে জীবনানন্দ দাশের চারটি কবিতার উদ্ধৃতি আছে, আছে শীত-জ্ঞাত কাব্য-গদ্যময় শৈল্পিক মনোলগ। দ্বিতীয় গদ্য, ‘মানবীর অশ্বথ-বটের বছায়া’। বিয়ের পর মেয়েদের বাবার বাড়ি যাওয়া…’নাইওর’-বিষয়ক। এই গদ্যও অনন্য ভাষাশৈলীর। এরকম প্রতিটি গদ্যে লেখক চমকপ্রদ বিষয় ও ভাষায় খুলে দিয়েছেন এক একটি দ্বার।
পাঠক একটার পর একটা গদ্য পড়বে, আর খুব সহজেই পৌঁছে যাবে যাদুময় এক ভাষাশৈলীর জগতে, যেখানে পাঠ ফুরাবে কিন্তু রেশ কাটবে না।

 

কবি ও লেখক খালেদ উদ-দীনের জন্ম :১০ মে ১৯৭৮ বিশ্বনাথ, সিলেট সহকারী অধ্যাপক, রাগীব রাবেয়া ডিগ্রি কলেজ, সিলেট পূর্ববর্তী কবিতাবই: রঙিন মোড়কে সাদা কালো (২০০৮) ভাঙা ঘর নীরব সমুদ্র (২০০৯) জলপাতালে মিঠে রোদ (২০১৫) নৈঃশব্দ্যের জলজোছনা (২০১৭) হাওয়াবাড়ির জানালাগুলি (২০১৯) The Sky House (2019) শিশুতোষ: সুপারম্যান (২০১৬) কথা বলা পাখি (২০১৭) পাখিবন্ধু (২০১৮) শেফালিখালার গল্প (২০১৮) পাখিবন্ধু (২০২০) জীবনচরিত : দেওয়ান ফরিদ গাজী (২০১৮) সম্পাদনা : বুনন (ছোটোকাগজ) সাহিত্য সম্পাদক : দৈনিক শুভ প্রতিদিন পাপড়ি রহমানের ‘নির্বাচিত গল্প’ (২০১৭) khaleduddin@gmail.com +8801711444928

Leave a Reply